সময় অঞ্চল (Time Zone) কী? - Askbangla.xyz
Askbangla তে আপনাকে সুস্বাগতম।এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং askbangla এর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন।বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
19 বার প্রদর্শিত
"বিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (172 পয়েন্ট)

এই প্রশ্নটির উত্তর দিতে দয়া করে প্রবেশ কিংবা নিবন্ধন করুন ।

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (172 পয়েন্ট)
আদর্শ সময় (Standard Time) : 884 খ্রিস্টাব্দে আন্তর্জাতিক চুক্তি অনুসারে, লন্ডনের পশ্চিমে অবস্থিত গ্রিনউইচ (Greenwich) শহরের মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত মধ্যরেখাকে (Meridian) 0° -দ্রাঘিমা হিসেবে স্বীকৃত হয়। পরবর্তীতে আরাে সুপারিশ করা হয় যে, গ্রিনউইচ মধ্যরেখা থেকে প্রতি 15” (দ্রাঘিমা) অন্তর অন্তর অঞ্চলগুলােকে এক একটি সময় অঞ্চল হিসেবে গণ্য করা হবে এবং এক অঞ্চল থেকে পরবর্তী অঞ্চলের (পূর্বদিকে) সময়ের পার্থক্য হবে এক ঘণ্টা বেশি এবং পশ্চিম দিকে এক ঘণ্টা কম।

গ্রিনউইচ মধ্যরেখার 7.5°E এবং 7.5° দ্রাঘিমার মধ্যবর্তী অঞ্চলকে প্রথম সময় অঞ্চল (First time zone) হিসেবে ধরা হয়। গ্রিনউইচের পূর্বদিকের সময় অঞ্চলগুলাের সময় গ্রিনউইচের সময় থেকে যথাক্রমে, 1, 2, 3 11, 12 ঘণ্টা বেশি (Faster) এবং পশ্চিমে দিকের অঞ্চলগুলাের সময় গ্রিনউইচ সময় থেকে অনুরূপভাবে কম হবে। এভাবে বিভক্ত অঞ্চল হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ সময় অঞ্চলে। ফলে বাংলাদেশের আদর্শ সময় (B.S.T Bangladesh Standard time) গ্রিনউইচ সময় থেকে 6 ঘণ্টা বেশি। অর্থাৎ বাংলাদেশের সময় বিকাল 2 টা হলে গ্রিনউইচের সময় হবে সকাল (12+2+6+ ) = 8 (আট) ঘন্টা আবার একটি দেশের সীমানা যত বড়ই হােক না কেন সাধারণত ওই দেশের সর্বত্র আদর্শ সময় (ঐ দেশের প্রেক্ষিতে) একই হবে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে অঞ্চল ভেদে বিভিন্ন অঞ্চলের দ্রাঘিমার বিভিন্নতার কারণে একই দেশের অভ্যন্তরে বিভিন্ন অঞ্চলের সময় বিভিন্ন হবে।

আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা (International Date line) : গ্রিনউইচ থেকে 180 তম মধ্যরেখা বা দ্রাঘিমা রেখা (Meridian) কে আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা (International Date line) বলে এবং এটি দ্বাদশতম অঞ্চলের কেন্দ্রীয় মধ্যরেখা। আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা এবং 172.5" E (পূর্ব) এর মধ্যবর্তী সময় গ্রিনউইচ বা বিশ্ব সময় (Universal time) থেকে 12 ঘণ্টা পর্যন্ত বেশি চলে থাকে এবং আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা এবং 172.5" W (পশ্চিম) দ্রাঘিমার মধ্যবর্তী সময় 12 ঘণ্টা কম ঢলে থাকে। মনে করা যাক একজন ভ্রমণকারী গ্রিনউইচ থেকে পূর্ব দিকে রওনা হলেন। তার হাতে যে ঘড়ি আছে সেই ঘড়ির সময় গ্রিনউইচের সময়ের সাথে মিলানাে আছে। তার চলার পথে প্রতি 15" দ্রাঘিমা অতিক্রমের পর তার হাতের ঘড়ির সময় এক ঘন্টা করে বৃদ্ধি করে এভাবে চলতে থাকলে 180° দ্রাঘিমা অতিক্রমের পর তার ঘড়ির সময় 12 ঘণ্টা সামনের দিকে ঘুরে যাবে। এভাবে একই অভিমুখে চলতে চলতে তিনি যখন পুনরায় গ্রিনউইচের ফিরে আসবেন তখন তার ঘড়ির সময় 24 ঘণ্টা অর্থাৎ এক দিন বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে ওই সময় গ্রিনউইচের লােকের কাছে ওই দিন যদি রবিবার হয় তাহলে ওই দিন ভ্রমণকারীর কাছে ওই দিন সােমবার বলে মনে হবে। এই অসুবিধা দূর করতেই 180° দ্রাঘিমা রেখাকে আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা নামকরণ করে ঐ রেখার স্থানসমূহ অতিক্রম করার পর পঞ্জিকায় বা ক্যালেন্ডারে এক দিন পরিবর্তন করতে হবে।

এফিমেরিস সময় (Ephimeris time) : বহুকাল যাবত পর্যবেক্ষণের পর এটা অনুমিত হলাে যে, পৃথিবীর নিজ অক্ষে ঘূর্ণন কালের মধ্যে খুবই সামান্য পরিমাণ অসংগতি আছে। এই অসংগতি দূর করতে হলে খুবই নিখুত ঘড়ির প্রয়ােজন এবং সেটা করতে হলে নক্ষত্রপুঞ্জের গতিবিধি আরাে নিখুঁতভাবে পর্যবেক্ষণ করা প্রয়ােজন। বর্তমানে জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের আকাশে নক্ষত্র পুঞ্জের গতিবিধি সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞান অর্জিত হয়েছে। এর ফলে তারা ভবিষ্যতে যেকোনাে জ্যোতিষ্কের অবস্থান সঠিকভাবে নির্ণয় করতে সক্ষম। এ জন্য জ্যোতির্বিদরা এক ধরনের সময়ের ব্যবহার করে থাকেন। এই সময়কেই এফিমেরিস সময় বলা হয়। 1900 খ্রিস্টাব্দে এক মধ্য সৌর সেকেন্ডের (Solar mean second) পরিমাণ যতটুকু ছিল এফিমেরিস সেকেন্ডের পরিমাণ ততটুকু ধরা হয়েছে। বছর (Year) : সূর্যের চতুর্দিকে পৃথিবীর আবর্তন, ক্রান্তিবৃত্তে সূর্যের আবর্তন ইত্যাদি গতিসমূহের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন ধরনের বছর গণনা করা হয়। মূলত ক্রান্তিবৃত্ত পথে সূর্যের একটি আবর্তন সম্পন্ন করতে যে সময় লাগে তাকে একটি বছর হিসেবে গণনা করা হয়। একটি বছরের সময় কাল নির্ভর করে কার সাপেক্ষে সূর্য একটি আবর্তন সম্পন্ন করল। এভাবে আমরা তিন ধরনের বছর পাই। এগুলাে হলাে :

 (a) নাক্ষত্রিক বছর

(b) ক্রান্তীয় (Tropical) বছর

(c) বিভ্রান্তি বছর (Anomalistic Year')। এ ছাড়া সাধারণের ব্যবহারের জন্য পঞ্জিকা বছর (Civil year) এবং সমুদ্রে নাবিকেরা এক ধরনের বছর ব্যবহার করে থাকে যাকে বলা হয় নৌ-আলমানাক (Nautical Almanac), প্রতিটি বছর সম্পর্কে নিচে বিস্তারিত আলােচনা করা হলাে।

নাক্ষত্রিক বছর (Sidereal Year) : মহাকাশ ক্রান্তিবৃত্ত পথে সূর্যের একটি প্রতীয়মান আবর্তন সম্পন্ন করতে যে সময় লাগে তাকে নাক্ষত্রিক বছর বলে। ক্রান্তিবৃত্তে একটি নির্দিষ্ট নক্ষত্রের সাপেক্ষে যাত্রা করে পুনরায় ওই নক্ষত্রে ফিরে আসতে সূর্যের যে সময় অতিবাহিত হয় তাই হলাে এক নাক্ষত্রিক বছর। যেহেতু কল্পিত সূর্য এবং প্রকৃত সূর্যের একটি চক্র সম্পন্ন করতে একই সময় লাগে সে কারণে উভয় সূর্যের ক্ষেত্রেই নাক্ষত্রিক বছরের সময় কাল হবে এবং একই সময় হলাে, প্রায় 365.256374 গড় সৌর দিবস বা 365 6 9" 9" । মূলত নাক্ষত্রিক বছর হলাে সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর একবার ঘুরে আসার মধ্য সৌর সময় ।

ক্রান্তীয় বছর (TropicalYear) : মেষ বিন্দু যা অয়ন চলন (Precession) এবং অক্ষ বিচলনের (Nutation) কারণে ক্রান্তিবৃত্তের ওপর খুব ধীর গতিতে চলন্ত একটি বিন্দু। এই মেষ বিন্দু থেকে যাত্রা শুরু করে আবার মেষ বিন্দুতে ফিরে আসতে সূর্যের যে গড় সময় লাগে তাকে ক্রান্তীয় বছর বলে। যেহেতু মেষ বিন্দুর গতি সুষম নয় সে কারণে ক্রান্তীয় বছরের সঠিক সময় নির্ণয় করতে, মেষ বিন্দুর সাপেক্ষে সূর্যের অনেকগুলাে আবর্তনকে পর্যবেক্ষণ করে গড় সময় ।

গণবছর বা পঞ্জিকা বছর (Civil Year) : যে তিন প্রকারের বছর নিয়ে আলােচনা করা হয়েছে সেগুলাে হলাে— নাক্ষত্রিক বছর (Sidereal year) = 365.2564 গড় সৌর দিন ক্রান্তীয় বছর (Tropical year) = 365.2422 গড় সৌর দিন এবং বিভ্রান্তি বছর (Anomalistic year) = 365.2596 গড় সৌর দিন উপরােক্ত বছরগুলাের কোনটিরই দিন সংখ্যা পূর্ণসংখ্যা নয় বা পরস্পরের বিভাজ্য নয়। কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে বছরের দিন সংখ্যা পূর্ণসংখ্যায় এবং ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সামঞ্জস্য পূর্ণ হওয়া বাঞ্চনীয়। এই অসুবিধা দূরীকরণার্থে 365 অথবা 366 পূর্ণ সংখ্যক দিন ধরে বছর গণনা করা হয়। এভাবে নির্ণীত বছরকে গণবছর বা পঞ্জিকা বছর (Civil year) বলা হয়। পঞ্জিকা বছরের দিন সংখ্যা ক্রান্তীয় বছরের দিন সংখ্যার প্রায় সমান। 365 দিনে বছর গণনা করা হলে চার বছরে যে দিন সংখ্যা হয় তা চারটি ক্রান্তীয় বছর থেকে প্রায় 4x5* – 48 46 = 23*15*4* কম হয় যা প্রায় একটি মধ্য সৌর দিনের সমান। এই পার্থক্য দূর করতে প্রতি চতুর্থ বছরে এক দিন যােগ করে ওই বছরকে 366 দিন ধরা হয়। এই বছরকে Leap year বলে যাতে ফেব্রুয়ারি মাস 28 দিনের পরিবর্তে 29 দিন ধরা হয়। এতেও অসুবিধা কিছুটা থেকেই যায়। জুলিয়ান ক্যালেন্ডারে এ বিষয়ে আলােচনা করা হবে।

জুলিয়ান ক্যালেন্ডার : আলেকজান্দ্রার জ্যোতির্বিদ Sosigemes (সােসিজেমস)-এর সহায়তায় মিশরের রাজা জুলিয়াস সিজার মিশরীয় ক্যালেন্ডার অনুকরণে নিম্ন উপায়ে পঞ্জিকার সংস্কার সাধন করেন এবং তার নামানুসারে এই ক্যালেন্ডারকে জুলিয়ান ক্যালেন্ডার বলে । (i) চান্দ্র মাসকে বর্জন করে প্রতিমাসের দৈর্ঘ্য 30 দিন কিংবা 31 দিন ধার্য করা হয় একমাত্র ফেব্রুয়ারি মাসকে 28 দিন বা 29 দিন ধরা হয় । (ii) পন্দ্রিকা বছরের দৈর্ঘ্য ক্রান্তীয় বছর 365.25 দিন ধরতে হবে যার মধ্যে প্রতি চার বছরের প্রথম তিন বছর 365 দিন এবং চতুর্থ বছরের দৈর্ঘ্য 366 দিন ধরা হয় যা অধিবর্ষ (Leap year) হিসেবে গণ্য করা হয় । Leap year বা অধিবর্ষে ফেব্রুয়ারি মাস 29 দিন এবং অন্যান্য বছরে 24 দিন ধরা হয় । (iii) শুভ মাসের দিন সংখ্যা 31 এবং অশুভ মাসের দিন সংখ্যা 30 দিন হবে। জুলিয়াস সিজারের মৃত্যুর পর তাঁর নামানুসারে জুলাই মাসের নামকরণ করা হয়। সিজারের মৃত্যুর পর রােমান সিনেট পঞ্জিকার কিছু রদবদল করেন। ওই সময় আগস্ট মাসের নাম Augustus সিজারের নামানুসারে করা হয় এবং আগস্ট মাস 31 দিন ধার্য করা হয়। পুরাতন রােমান পঞ্জিকা অনুসারে মেষ বিন্দু 25 মার্চ থেকে বহুদূরে অবস্থান করায় জুলিয়াস সিজার খ্রিস্টপূর্ব 4) অব্দে অতিরিক্ত তিন মাস যােগ করে মেষ বিন্দুর দিনকে এগিয়ে এনে 25 মার্চের সাথে মিলিয়ে দেন।

 গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার (Gregorian Calendar) : 1582 খ্রিস্টাব্দে রােমের পােপ গ্রেগরি পঞ্জিকার আরাে কিছু সংস্কার সাধন করেন। পােপ গ্রেগরি দুটি প্রয়ােজনীয় সংস্কার সাধন করেছিলেন। প্রথমত, মেষ বিন্দুর দিন 25 মার্চ থেকে এগিয়ে 21 মার্চ করেন এবং Leap year নির্ণয় করার নিয়ম করেন যে, শত বছরে যেমন 4000, 8000, 1200, 1600, 2000, 24000).. ইত্যাদি 4 দ্বারা বিভাজ্য হবে সেই শত বছরকে (Century) Leap year ধরতে হবে কারণ জুলিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে প্রতি 400 ক্রান্তীয় বছরে (Tropical year) সময় 3 দিন 2 ঘণ্টা 53 মিনিট 30) সেকেন্ড বেশি হয়ে যায়। এ জন্য প্রতি 400) বছরের প্রথম তিন শতকের বছরকে Leap year ধরা যাবে না অর্থাৎ ওই শতাব্দী বছরগুলােতে ফেব্রুয়ারি মাস 28 দিন ধরতে হবে। ফলে অতিরিক্ত তিন দিন বিয়ােগ হয়ে কিছুটা সমতা রক্ষা করে। এই সংশােধনের পরও প্রতি 404 গ্রেগরিয়ান বছরের সময় । অতিরিক্ত থেকে যায়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর 6 বার প্রদর্শিত
0 টি উত্তর 15 বার প্রদর্শিত
0 টি উত্তর 9 বার প্রদর্শিত
29 অগাস্ট "জীববিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
0 টি উত্তর 15 বার প্রদর্শিত
29 অগাস্ট "জীববিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
0 টি উত্তর 12 বার প্রদর্শিত
29 অগাস্ট "জীববিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
1 উত্তর 7 বার প্রদর্শিত
29 অগাস্ট "জীববিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল

1,901 টি প্রশ্ন

1,522 টি উত্তর

5 টি মন্তব্য

69 জন সদস্য

Askbangla.xyz এ আপনাকে বিজিট করার জন্য সুস্বাগতম, এই সাইটে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। তাই আদৃশ্য, অজানা বিষয় সম্পর্কে জান্তে নিয়মিত আমাদের সাইটে বিজিট করুন। আমরা সবসময় দেশ ও দেশের মানুষেকে ভালো কিছু উপহার দেয়ার জন্য সবসময় নিজেদের বিলিয়ে দেই। আমাদের লক্ষ ও উদ্দেশ্য হলো মানবসেবা করা, মানুষের কল্যাণে কাজ করা। ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি অনলাইন কমিউনিটি। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করতে পারবেন ৷ আর অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে অবদান রাখতে পারবেন।
5 Online Users
0 Member 5 Guest
Today Visits : 1291
Yesterday Visits : 3007
Total Visits : 116672
...